মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা

পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা

 ২০১১ ইং সালের জুলাই থেকে ২০১২ইং জুন পর্যন্ত

১,নলছিয়া পাকা রাস্তা হইতে করিমেরবাড়ি পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

২,খালেক মাষ্টারের বাড়ী হইতে দুলালে বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ

৩,বেড়া হতে মন্ডলপাড়া পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

৪,হলদিয়া হইতে বাড়ী হইতে চিনিরপটল সীমানা পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার

৫,হলদিয়া বাজার হতে বেড়া বালিকা বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তা  মেরামত।

৬,উত্তর দিঘলকান্দি রফিক মোল্লার বাড়ি হইতে িআশ্রায়ন প্রকল্প পর্যন্ত রাস্তা  পূর্ণ নির্মাণ

                                      ২০১২ ইং সালের জুলাই থেকে ২০১৩ ইং সালের জুন পর্যন্ত

১, পাতিলবাড়ি জোব্বারের বাড়ি হতে বারি মেম্বরের বাড়ি পর্যন্ত পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

২, দিঘলকান্দি বাজার হইতে খেয়া ঘাট পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

৩, কুমারপাড়া সুলতানের বাড়ী হইতে আরম্ভ করিয়া রশিদের বাড়ি  পর্যন্ত  রাস্তা  মেরামত

৪ ,িউত্তর দিঘল কান্দি রশিদের বাড়ি হদত হলদিয়া খেয়াঘাট পর্যন্ত রাস্ত মেরামত।

                                        ২০১৩ সালের জুলাই থেকে  ২০১৪ ইং সালের জুন পর্যন্ত

১, কালুর পাড়া মজিদ মেম্বরেরবাড়ি হইতে আরম্ভ করিয়া কুমার পাড়া স্কুল পযন্ত রাস্তা মেরামত

২,সিপি গাড়া মাড়া সাইদরে মেম্বরের বাড়ি হতেিআশ্রায়ন পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

৩, রেজাউল করিম মেম্বরের বাড়ি হতে দিঘলকান্দি বাজার পর্যন্ত রাস্ত মেরামত।

৪,গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে নলছিয়া সীমানা পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

২০১৪ সালের জুলাই থেকে  ২০১৫ইং সালের জুন পর্যন্ত

১, হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মন্ডলপাড়া পর্যন্ত রাস্তা মেরামত

২,লাইলির বাড়ি হতে আরম্ভ করিয়া জুমার বাড়ি সীমানার কফিলের উদ্দিনের বাড়ী পর্যন্ত রাস্ত মেরামত।

৩,গুয়াবাড়ি হারেছ এর বাড়ী হইতে সোলেমানের বাড়ী পর্যন্ত রাস্ত মেরামত।

৪,হলদিয়া বাজার হতে বেড়া গ্রাম ওমর হোসেনের বাড়ি পর্যন্ত রাস্ত মেরামত।

৫,হলদিয়া হতে নলছিয়া আইয়ুব ম্যাজিষ্টেটেরে বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা পুণঃ সংস্কার

 

                                                         ২০১৫ সালের জুলাই থেকে  - ২০১৬ইং

১,দিঘলকান্দি হতে পাতিল বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা েনির্মাণ।

২,পাতিল বাড়ি আশ্রায়ন  থেকে উত্তর দিঘলকান্দি আশ্রায়ণ পযৃন্ত রাস্তা মেরামত।

৩,কুমার পাড়া নতুন চরে আশ্রায়ন প্রকল্পের মাটি কাটা।

৪,ঈদগাহ মাঠ সংস্কার।


Share with :

Facebook Twitter